শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন

দৃষ্টি দিন:
সম্মানিত পাঠক, আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছি। প্রতিমুহূর্তের সংবাদ জানতে ভিজিট করুন -www.coxsbazarvoice.com, আর নতুন নতুন ভিডিও পেতে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল Cox's Bazar Voice. ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে শেয়ার করুন এবং কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।

অনেক সময় নষ্ট হয়েছে, আর দেরি করতে চাই না

বিনোদন ডেস্ক:

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচন নিয়ে জল কম ঘোলা হয়নি। সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে উচ্চ আদালত পর্যন্ত যেতে হয় প্রার্থীদের। অবশেষে হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে সম্পাদক হিসেবে নিপুণ আক্তারকে দায়িত্ব পালনের আদেশ দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে কথা বললেন এই অভিনেত্রী

নিজের পক্ষে রায়…

গতকাল সকালেই শুনেছি, হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমাকে দায়িত্ব পালন করতে আদেশ দেওয়া হয়েছে। প্রথমেই শুকরিয়া আল্লাহর কাছে। ৯ মাস যে যুদ্ধটা করেছি, সেই রায় ন্যায়ের পক্ষে আসায় আরও বেশি শান্তি পাচ্ছি। এই ৯ মাস আমাকে অনেক বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে আসতে হয়েছে। আমি খুবই খুশি। এমন একটা খুশির সংবাদ শুনে সহকর্মীরা সবাই ফোন করছেন। তাই গতকাল এফডিসিতে না এসে থাকতে পারিনি। দীর্ঘদিন পর রিলাক্সে সবার সঙ্গে কথা হয়েছে, দেখা হয়েছে। এরপর আমরা একটা সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করি।

লড়াইয়ের ৯ মাস…

আমাকে পদে পদে মানসিক প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। সবকিছুই কোনো না কোনোভাবে চলছিল। কিন্তু দীর্ঘ ৯ মাস সব জায়গায় থেমে যাচ্ছিলাম। অনেক সময় বিব্রত হতে হয়েছে। যেখানেই গিয়েছি, সবার প্রশ্ন ছিল, ‘আসলে কী হচ্ছে। কবে এর শেষ হবে।’ সত্যের জয় হবে বুঝতে পারলেও মানসিকভাবে স্বস্তিতে ছিলাম না। কিন্তু সত্যের জন্য লড়ে গেছি। তবে জানতাম সত্যের জয় দেরিতে হলেও হয়। আমরা একের পর এক ধৈর্য ধরেছি। আজকের সেই ফল আমার সহকর্মী, সমিতির সব সদস্যের মুখে হাসি। আমাদের সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চনও এটা নিয়ে মানসিকভাবে একটা সংশয়ের মধ্যে ছিলেন। কারণ, তিনি আমাদের প্যানেলের সবাইকে নিয়েই দায়িত্ব পালন করতে চেয়েছেন। এখন সেটা পূর্ণতা পাবে। এখন আমরা রিলাক্সে আছি। কীভাবে সমিতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়, সেটা নিয়ে পরিকল্পনা করব।

গুরুত্বপূর্ণ কাজ…

আমি কিন্তু একটা কারণেই নির্বাচন করেছি, সেটা শিল্পীদের জন্য। আমার নির্বাচনী ইশতেহারে বলাই ছিল- প্রথম কাজ থাকবে চলচ্চিত্রের সকল সংগঠন মিলে দেশরত্ন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে যেতে চাই। আমাদের চলচ্চিত্রের সকল সমস্যাগুলো তার কাছে বলতে চাই। এখন গোছালোভাবে শিল্পীদের জন্য কাজ করে যাব। অনেক সময় নষ্ট হয়েছে। আর দেরি করতে চাই না। শিগগির আমরা মিটিং করে কাজ শুরু করব।

বিপক্ষ প্যানেলের বিজয়ীরা…

শিল্পীদের মধ্যে মান-অভিমান থাকবেই। সেটা ভুলে আমরা একসঙ্গে শিল্পীদের জন্য কাজ করে যাব। মিশা ভাইয়ের সঙ্গে আমার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হয়। কেউ ফোন করলে কথা বলব না-এমন মানুষ আমি না। এরমধ্যে সমিতির বিভিন্ন পদ থেকে অনেকেই পদত্যাগ করেছেন। তারা আগে থেকেই বলছিলেন, আমাদের সঙ্গে তারা মিটিং করতে চান না। এখন বৈধতা পাওয়ার পর হয়তো আমরা সবাই মিলে কাজ করব। কারণ, এত কম লোক দিয়ে সংগঠন চালানো যায় না। এ ব্যাপারে আমার সভাপতি যা বলবেন, সেটাই চূড়ান্ত হবে। আর আমরা কিন্তু কাউকে বলিনি এফডিসিতে না আসতে। এফসিডিতে আসার অধিকার সব শিল্পীর রয়েছে। তারা এলে তো না করব না; বরং একসঙ্গে কাজ করে যাওয়াই সবার জন্য ভালো। এখন সবাই মিলে কাজ করে যাব। আজকের পর সব পরিকল্পনা ঠিক করব।

ভয়েস/আআ

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020
Design & Developed BY jmitsolution.com